ভাষা

পাঠ 7

ঈশ্বর তাঁর জন্য বেঁচে থাকার লড়াইয়ে আমাদের কার্যকর হাতিয়ার দান করেন। সেগুলোর ব্যবহার না করলে আমরা ব্যর্থ হব।

জীবন সহজ নয়। খ্রিস্টধর্ম এমন কোনো বিশ্বাস নয় যা আপনাকে আড়ালে রাখে যাতে আপনার গায়ে ফুলের টোকা না পড়ে। বরং, ঈশ্বর আমাদের হৃদয়ে আগুন জ্বালিয়েছেন এবং যে অন্ধকারে আমরা জন্মগ্রহণ করেছি সেই অন্ধকারে আগুনের সেই শিখা প্রদর্শন করতে বলেছেন। পৃথিবী যেভাবে প্রত্যাশা করে তিনি আমাদেরকে তার থেকে ভিন্নভাবে আমাদের বাস্তব জীবন যাপন করতে বলেন।

আমরা যখন আবার জন্মগ্রহণ করি, সারা জীবনের জন্য আমাদের অবিরাম পুষ্টির প্রয়োজন হয়। আমরা দিনে একাধিকবার খাই। আমরা প্রতিদিন কত ঘন্টাই না ঘুমাই। আমরা প্রতিদিন কতই না জল পান করি। খাদ্য, জল এবং ঘুমের আধ্যাত্মিক প্রতিরুপ হলো বাইবেল পড়া, প্রার্থনা কড়া এবং অন্যদের সাথে মিলে তাঁর উপাসনা করা।

পৃথিবীটা নোংরা।[5] আমাদের শুদ্ধ হতে হবে। বেঁচে থাকতে আমাদের অন্তরে প্রতিদিন ময়লা ছুঁড়ে দেওয়া হতে থাকবে। আমাদের চোখ দিয়ে আমরা বিকৃতি দেখি। কান দিয়ে, আমরা অভিশাপ শুনি। আমাদের হাতেই, আমরা কাঁটার বেদনা এবং বন্ধুত্বের হাত অনুভব করি। আমাদের জিভে আমরা তিক্ত বিষের স্বাদ গ্রহণ করি। আমাদের নাকে পাই মৃত্যুর দূষিত গন্ধ।

আবর্জনা দূর করতে, অন্ধকারকে পিছনে ঠেলে দিতে এবং আমাদের চারপাশের দুনিয়াকে পরিবর্তন করতে ঈশ্বর আমাদের কী হাতিয়ার দিয়েছেন?

প্রথমত, আমরা ইতোমধ্যে আলোচনা করেছি যে আমাদের জীবন নিয়েতার পরিকল্পনা তিনি বাইবেলে প্রকাশ করেছেন। বাইবেল পড়া এবং ঈশ্বরের প্রতিশ্রুতিগুলোকে আলিঙ্গন করার মাধ্যমে, আমাদের মন শুদ্ধ ও আমাদের হৃদয় দৃঢ় হয়।

দ্বিতীয়ত, তিনি আমাদের ভিতরে পবিত্র আত্মা রোপন করে দিয়েছেন, তাই আমরা ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করতে পারি এবং অনুভব করতে পারি যে তিনি আমাদের প্রার্থনায় সাড়া দিচ্ছেন। এটি আমাদের প্রত্যয়কে গভীর করে এবং আমাদেরকে ভিন্নভাবে বাঁচতে ও পৃথিবীকে পরিবর্তন করতে সাহায্য করে।

তৃতীয়ত, তিনি উপাসনা করার জন্য আমাদের তৈরি করেছেন। আমরা যখন তার উপাসনা করি, তিনি তখন আমাদের আকাঙ্ক্ষা পূরণ করেন, এবং এই আমাদের দেওয়া পৃথিবীর আঘাত সারাতে শুরু করেন।

চতুর্থত, মানুষ, প্রাণী ও বিশ্বকে আমাদের জন্য নির্ধারিত সীমানার মধ্যে উপভোগ করতে এবং ভালোবাসতে তিনি আমাদের তৈরি করেছেন।[15] অন্য মানুষের সাথে থাকা এবং প্রাকৃতিক বিশ্ব উপভোগ করাকে আমাদের অগ্রাধিকার দিতে হবে।

ঈশ্বরে বিশ্বাসী এবং আমাদের মত করে তাকে ভালোবাসে এমন ব্যক্তিদের সাথে সময় কাটানোর বিষয়ে আমাদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। এটি আমাদের উৎসাহিত ও শক্তিশালী করে। এটি আমাদের ভারসাম্যহীন হওয়া থেকে রক্ষা করে। এটিকে বলে গির্জাচার্চ এমন কোনো বিল্ডিং নয় যেখানে আমরা মিলিত হই, বা এমন কোনো সমাবেশ নয় যেখানে আমরা একত্রিত হই; গির্জা হলো সেই মানুষ যারা ঈশ্বর ও আমাদের উভয়কে ভালবাসে। ঈশ্বরকে ভালোবাসেন এমন ব্যক্তিদের সাথে সময় কাটানো (বাইবেল পড়েন, প্রার্থনা করেন, উপাসনা করেন এবং একে অপরকে সাহায্য করেন যেভাবে ঈশ্বর আমাদেরকে বাইবেলে করতে বলেন) অত্যাবশ্যক।

অন্য খ্রিস্টানদের সঙ্গে সাক্ষাৎ গুরুত্বপূর্ণ কি না তা নিয়ে অনেকেই ভেবেছেন। কিন্তু বাইবেল বলছে যে এটিই মূল বিষয়। যীশু আবার জেগে উঠলেন একটি প্রীতিপূর্ণ সম্প্রদায় গড়ে তোলার জন্য: যেটি তাঁর সংস্পর্শে শুদ্ধ এবং তাঁর মধ্যেই সন্তুষ্ট থাকে। তিনি মৃতদের মধ্য থেকে পুনরুত্থানের পরে তার আচরণে এটি চিত্রিত করেছিলেন যখন তিনি তার বন্ধুদের সাথে খেয়েছেন, তাদের সাথে হেঁটেছেন এবং তাদের ব্যক্তিগত ঘরে তাদের সাথে দেখা করেছেন।

যদি এটিও আমাদের বোঝার জন্য যথেষ্ট না হয়, তাহলে একজন যাজকের বলা এই আগ্রহ উদ্দীপক গল্পটি আমাদের সাহায্য করতে পারে:

একদিন, একজন লোক একজন যাজকের কাছে এসে বললেন, “ফাদার, আমার ভাই পল, আমাকে ও অন্য সকল খ্রিস্টানদের কাছ থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। আপনাকে তার সাথে কথা বলে বোঝাতে হবে যে তাকে ফিরে আসতে হবে!”

সেই যাজক পলের বাড়িতে গিয়ে দরজায় টোকা দিলে তাকে ভিতরে যেতে বলা হল।

ভিতরে প্রবেশ করে তিনি পলকে গনগন করে জ্বলতে থাকা একটি আগুনের দিকে তাকিয়ে থাকতে দেখলেন। তারা নীরবে অভিবাদন জানালেন এবং যাজক পলের পাশে বসে আগুনের দিকে তাকিয়ে রইলেন। এক মুহূর্ত পরে যাজক একটি ধাতব চিমটি তুলে নিয়ে আগুন থেকে একটি সাদা-গরম কয়লা ধরলেন এবং আগুনের ঠিক বাইরে পাথরের মেঝেতে রাখলেন। তিনি পলের দিকে তাকিয়ে মাথা নেড়ে হাসলেন এবং অপেক্ষা করতে থাকলেন। কয়েক মিনিট পর কয়লা এতটাই ঠান্ডা হয়ে গেল যে তাতে আর কোনো আগুন থাকলো না।

যাজক পলের দিকে মাথা নাড়লেন, কয়লার টুকরোটি তুলে নিয়ে আবার আগুনে ফেলে দিলেন। কিছুক্ষণ পর কয়লার টুকরোটি আবার জ্বলে উঠল। যাজক হেসে পলের দিকে তাকিয়ে শেষবারের মতো মাথা নেড়ে চলে যাওয়ার জন্য উঠলেন।

আমরা হলাম সেই কয়লার টুকরোটি। আমাদের চারপাশে অন্যদের জ্বলন্ত আগুন ছাড়া, আমরা শেষ পর্যন্ত শীতল হব এবং আমাদের আগুন হাইয়ে ফেলবো। আমাদের বাইবেল পড়তে হবে, প্রার্থনা ও উপাসনার একটি অধ্যবসায়ী দৈনিক অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে এবং অন্যান্য খ্রিস্টানদের সাথে সময় কাটানোর বিষয়কে অগ্রাধিকার দিতে হবে, তবেই আমরা একে অপরকে ঈশ্বরের প্রতি আনুগত্যপূর্ণভাবে জীবনযাপন করতে সাহায্য করতে পারবো।

আমরা যদি এটি করি, তাহলে ঈশ্বর আমাদেরকে শক্তিশালী করবেন, উৎসাহ দেবেন এবং আশীর্বাদ করবেন। তিনি এমন লোকেদের সাথে সুসমাচার ভাগ করে নেওয়ার সুযোগ দেবেন যাদের এটি ঠিক আমাদের মতোই অত্যন্ত প্রয়োজন।

গভীরে খনন

পড়ুন গালাতীয় 5:22-26, সামসঙ্গীত 121:1-8, এবং 1 করিন্থিয় 12:20 - 13:13। ঈশ্বর কীভাবে আমরা জীবন যাপন করি বলে চান তা কি আপনার কাছে পরিষ্কার? প্রার্থনা করুন যাতে আপনি এই শ্লোকগুলোতে যে ভালবাসার বিষয়ে পড়েন তা প্রকাশ করার শক্তি ঈশ্বর আপনাকে প্রদান করেন৷ এই ধরনের ভালোবাসাকে বাস্তবে রূপান্তরিত করা একটি উপায় কী? এটি লিখুন, তারপর কাজ শুরু করুন!

তালিকা তালিকা পরবর্তী