ভাষা

পাঠ 1 ভিডিও

পাঠ 1

আমাদের সুখবর আছে। ঈশ্বর আমাদেরকে ভালোবাসার ও ক্ষমা করার, অনন্ত জীবন দেওয়ার, শয়তানের থেকে মুক্তি দেওয়ার, এবং যতক্ষণ আমরা তার প্রতি বিশ্বাস রাখি ও ভালোবাসি ততক্ষণ তার সাথে নিকটতম বন্ধুত্ব রাখার প্রতিজ্ঞা করেছেন।

আপনি কি এটি বিশ্বাস করেন? আপনি কি বুঝতে পারছেন এটি আপনার জন্য কি অর্থ প্রদান করছে ?

বাইবেলে বলা হয়েছে চিরকাল ঈশ্বরকে ভালোবাসা, মেনে চলা, এবং উপভোগ করার জন্য আমাদের সৃষ্টি করা হয়েছে, তবে আমরা তা পারি না।

কেন পারি না?

কারণ দুদিক থেকে আমরা তার থেকে আলাদাভাবে জন্মগ্রহন করেছি।

প্রথমত, আমরা তাকে জানি না, এবং আমরা এমন কাউকে ভালোবাসতে পারি না যাকে আমরা চিনি না।

দ্বিতীয়ত, আমরা খারাপ ইচ্ছা নিয়ে জন্মগ্রহন করেছি যা আমাদেরকে জীবন, জ্ঞান, এবং ঈশ্বরের ভালোবাসা থেকে আলাদা করেছে। আমাদের মন্দ ইচ্ছাগুলোই মৃত্যু, অসুস্থতা, অন্যায়, যুদ্ধ—তথা জীবনের সকল কষ্টের জন্য দায়ী।

আমাদের মন্দ আকাঙ্ক্ষাগুলি কীভাবে আমাদেরকে ঈশ্বর থেকে আলাদা করে?

খারাপ ইচ্ছাগুলোর মূলে রয়েছে স্বার্থপরতা যা সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্থ করে। একজন পুরুষ যখন তার স্ত্রীয়ের কাছাকাছি আসে, সে আরও সহজভাবে বুঝতে পারে যে তার কথা, কাজ, এবং চিন্তাভাবনা কীভাবে তার স্ত্রীকে আঘাত দিতে পারে। ঠিক সেরকমই ঈশ্বরের সাথে আমাদের সম্পর্ক। আমরা যত ঈশ্বরের কাছাকাছি এগিয়ে যাই, আমরা তত বুঝতে পারি যে কীভাবে আমাদের খারাপ ইচ্ছাগুলো তার থেকে দূরে সরিয়ে দেয়।

তার থেকে দূরে সরে যাওয়ায় আমাদের প্রতি ঈশ্বরের প্রতিক্রিয়া কী ছিল?

ঈশ্বর আমাদের সাথে তার বন্ধুত্ব ফিরিয়ে আনার জন্য মানুষের রূপ ধারণ করেন। সেই মানুষটিই যিশু।

ঈশ্বরের জন্য মানুষ হওয়া কেন গুরুত্বপূর্ণ ছিল?

প্রথমত, আমাদের সাথে ব্যক্তিগতভাবে সংযুক্ত হতে। দ্বিতীয়ত, আমাদের আনন্দ, ব্যাথা, এবং সংগ্রামগুলো অনুভব করতে। তৃতীয়ত, আমাদের খারাপ কাজগুলোর শাস্তি নিজে গ্রহন করে আমাদের জায়গায় তিনি মারা যাওয়ার জন্য। এবং চতুর্থত, আমাদের খারাপগুলোকে মুছে ফেলার জন্য, তার সাথে আমাদের নিকটতম বন্ধুত্বে আনার জন্য এবং আমাদেরকে চিরস্থায়ী জীবন দেওয়ার জন্য তিনি আবার পুনর্জীবন লাভ করার উদ্দেশ্যে।

যিশু আমাদের জন্য আংশিকভাবে মৃত্যুবরণ করা এটা প্রমাণ করে যে ঈশ্বর অন্যায়ের শাস্তি প্রদান করেন। আমরা এমন একজন ঈশ্বরকে চাইবো না যিনি অন্যায়কে শাস্তি না দিয়ে মুক্তি দেন। যিশুর মৃত্যু একটি গ্যারান্টি যে ঈশ্বর এটি কখনই করবেন না, কারণ তিনি আমাদের পাপের জন্য নিজেকেই শাস্তি দিয়েছেন, এমনকি তিনি কোন ভুল না করা সত্ত্বেও।

তার প্রধান উদ্দেশ্যই ছিল আমাদেরকে খারাপ প্রবৃত্তিগুলো থেকে মুক্ত করা এবং আমাদের হৃদয়কে পরিবর্তন করা যাতে আমরা তার সাথে একটি খাঁটি বন্ধুত্বে জীবন কাটাতে পারি। “পুনর্জন্ম দিয়ে বাইবেল এটিই বুঝিয়েছে।” এটা সম্পূর্ণরূপে পরিবর্তন হওয়াকে বোঝায়, যেখানে আমরা আমাদের খারাপ প্রবৃত্তিগুলির দাসত্ব থেকে দূরে যেয়ে ঈশ্বরের নিকটতম বন্ধুত্বের সম্পর্কে থাকবো।

এর অর্থ হলো সুসমাচার যিশুর আমাদের পাপকে গ্রহন করার মাধ্যমে শেষ হয়ে যায় না।

বাইবেলে বলা হয়েছে যে মৃত্যুর পরে যিশুকে আবার তোলা হয় এবং তিনি এখনও জীবিত। তিনি আমাদের ভাঙা জীবনের জন্য একটি পরিবর্তিত জীবন: তার সুন্দর জীবনটি প্রদান করেছেন। যখন আমরা এই অসাধারণ প্রস্তাবটি গ্রহণ করি, তখন তার পবিত্র আত্মা আমাদের ভিতরে বাস করতে শুরু করে এবং ধীরে ধীরে আমাদের খারাপ প্রবৃত্তিগুলি তার কল্যাণের জন্য ক্রমবর্ধমান আকাঙ্ক্ষা দিয়ে প্রতিস্থাপন করে।

আমাদের এই পরিচ্ছন হওয়া ও উপযুক্ত হওয়ার এই প্রক্রিয়াকে বলা হয় পবিত্রকরণ এই জীবনটি শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা নিখুত নই। যাইহোক, এই প্রক্রিয়া তৎক্ষনাৎ কার্যকরী ফলাফল দেয়।

এই ফলাফলগুলিকে আত্মা: প্রেম, আনন্দ, শান্তি, ধৈর্য, দয়া, মঙ্গলভাব, ভদ্রতা, বিশ্বস্ততা এবং আত্মনিয়ন্ত্রণের ফল বলা হয়। যদি আমরা আমরা খ্রিস্টান হই, আমরা এই গুণাবলীর উন্নতি করবো। যদি আমরা না করি, তাহলে সময় এসেছে ঈশ্বরের কাছে আত্মসমর্পণ করার এবং বাইবেল পড়ার মাধ্যমে, মন্দ থেকে দূরে সরে গিয়ে, প্রার্থনা করার এবং তাঁর উপাসনা করার মাধ্যমে তার কাছে যাওয়ার সময় এসে গেছে।

আমরা এই আধ্যাত্মিক ফলকে বাড়াতে পারি না। শুধুমাত্র এই পরিত্র সত্তাই তা করতে পারে যখন আমরা খ্রীষ্টের প্রতি আমাদের ভালোবাসা প্রকাশ করি।

বাইবেলে বলা হয়েছে আমাদেরকে ক্রুশকে ধারণ করতে হবে এবং যিশুকে অনুসরণ করতে হবে। এই বাণীটি একটি প্রতীক যা আমাদের স্বার্থপরতার মৃত্যুকে উপস্থাপন করে। ঠিক যেমন যীশু নিজের ক্রুশ বহন করেছিলেন (একটি নির্যাতনের সরঞ্জাম!), এবং এতে ঝুলে মারা গিয়েছিলেন, তেমনি আমাদেরও স্বার্থপরতার মৃত্যুর মাধ্যমে প্রতীকীভাবে একই কাজ করতে হবে।

কেন এটা গুরুত্বপূর্ণ? কারণ আমাদের স্বার্থপর প্রবৃত্তিগুলি ঈশ্বরের ইচ্ছার প্রবৃত্তিগুলির বিরূদ্ধ। যিশু চান একটি পরিপূর্ণ আত্মসমর্পণ এবং বিশ্বাস। তিনি বলেছেন আমাদের স্বার্থপর আকাঙ্ক্ষাগুলিকে ঈশ্বরের ইচ্ছার কারণে পরিবর্তন করতে। ঈশ্বর ও তার মানুষের প্রতি বিনীত সেবার মাধ্যমে এটি আমাদের ভালোবাসার প্রদর্শন করে।

যখন আমরা আত্মসমর্পণ করি এবং ঈশ্বরকে আমাদের মূল সন্তুষ্টি হিসেবে গ্রহণ করি, তাকে মেনে চলার শক্তি ও ইচ্ছা তিনি আমাদের প্রদান করেন। এটা তাকে আমাদের নিঃশাস বানিয়ে নেওয়ার মতো। যিশুতে নিঃশ্বাস গ্রহন করো। যিশুতে নিঃশ্বাস ত্যাগ করো। পুনরাবৃত্তি করো। প্রতিদিন। আমাদের মৃত্যুর দিনের আগ পর্যন্ত। যখন তিনি আমাদেরকে শত্রুদের প্রতি ভালোবাসার আচরণ করতে নির্দেশ দেন তখন যে তিনি আমাদের সাহায্য করবেন তা বিশ্বাস করার সাহস এটিই আমাদের দেয়।

আমাদের যীশুর সাথে যে সম্পর্ক তাই যে আমাদের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তা অনুভব করতে পারি কারণ তার পবিত্র আত্মা আমাদের ভিতরে রয়েছে। এই সম্পর্ক আপনার জীবনকে পরিবর্তন করবে যখন আপনি ঈশ্বরের উপর বিশ্বাস রাখবেন এবং ভালবাসায় তার আনুগত্য করবেন। তারপর, যখন আপনি ভুল করবেন, তিনি আপনাকে ঈশ্বরকে সম্মান করতে সাহায্য করবেন।

আপনি হয়তো ভাবছেন যে এই ধরনের জীবন আপনাকে একটি স্বাভাবিক জীবন উপভোগ করতে বাধা দিতে পারে। আমরা আপনাকে জানাতে পেরে খুশি যে ঈশ্বরকে ভালবাসা এবং আনুগত্য করা আমাদেরকে জীবনে ঈশ্বরের শান্তি এবং আনন্দ উপভোগ করতে সক্ষম করেছে।

যদিও আমরা এই জীবনে খারাপ প্রবৃত্তি থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত নই, এবং আমরা এখনও ভুল করি, তবুও যীশুর প্রতি আমাদের ভালবাসা আমাদের মন্দ আকাঙ্ক্ষাগুলিকে ক্ষুধার্ত করে তোলে এজন্য তারা তাদের শক্তি হারিয়ে ফেলে। ঈশ্বর এটি করেন যাতে আমরা তাকে, পৃথিবীকে এবং তিনি আমাদের যে সম্পর্ক দিয়েছেন তা বিশুদ্ধতার সাথে উপভোগ করতে পারি।

আমাদের বেশিরভাগ মানুষের কাছে বিশ্বাস করা কঠিন যে ঈশ্বর আমাদের প্রবৃত্তিগুলিকে পরিবর্তন করেন। তিনি আসলেই তা করেন। এটি বাস্তব। অন্যথায়, সুখবর আর সুখবর থাকবে না।

কেন অনেক খ্রিষ্টানরা একটি ভালো জীবনযাপন করে না?

প্রতিটি খ্রিস্টান পারতো মন্দ থেকে মুক্ত হয়ে বাস করতে, তবে এমন কিছু মুহূর্ত থাকে যখন আমরা তা করতে অস্বীকার করি। কখনও কখনও আমরা খ্রিস্টান হওয়ার পরেও যীশুর অবজ্ঞা করে মন্দকে বেছে নিই।

কেউ কেউ মন্দ থেকে মুক্তি পাওয়ার অভিজ্ঞতা থেকে বঞ্চিত হয় কারণ তারা বিশ্বাস করে না যে এটি সম্ভব বা ঈশ্বর এটি আসলেই অফার করেন। অন্যরা মন্দ থেকে মুক্তি পেতে অস্বীকার করে কারণ এটি ব্যয়সাপেক্ষ। কারণ এটির জন্য ঈশ্বরের প্রতি সম্পূর্ণ, অব্যাহত আত্মসমর্পণ লাগে।

এটি দ্বারা কী বোঝায়?

ঈশ্বরের কাছে আমরা আত্মসমর্পণ করার পরে, আমাদেরকে অব্যাহতভাবে তার প্রতি বিনীত থাকার জন্য বলা হয়েছে। এটি ক্রমাগত হওয়া প্রয়োজন কারণ আমাদের সবারই স্বার্থপরতায় ফিরে যাওয়ার প্রবণতা রয়েছে। বাইবেল এই প্রবণতাকে পাপের প্রকৃতি বলেছে। আমরা জন্ম নেওয়ার দিন থেকে মারা যাওয়ার দিন পর্যন্ত এটি আমাদের কাছে থাকে।

আমরা যখন ঈশ্বরকে বিশ্বাস করি এবং তাঁর উপর নির্ভর করি, মন্দ থেকে দূরে সরে যাই, প্রার্থনা করি, উপাসনা করি, বাইবেল পড়ি এবং অন্যান্য খ্রিস্টানদের সাথে সম্প্রদায়ে জড়িত হই, তখন আমাদের ভিতরে থাকা খ্রিস্টের আত্মা আমাদের আকাঙ্ক্ষাগুলি পরিবর্তন করতে শুরু করে এবং আমাদের পাপের স্বভাব থেকে ধীরে ধীরে মুক্তি দেয়।

উন্নতি করতে সময় লাগে। এই প্রক্রিয়ায় আশা হারাবেন না। এবং উন্নতির ধীর গতিকে উন্নতি না করার অজুহাত বানাবেন না।

ঈশ্বরকে সম্মান করা্র চেয়ে এই পৃথিবীর অন্য কিছু এমন স্থায়ী আনন্দ এবং শান্তি দেয় না। আমরা কেবল মন্দ কিছু খারাপ বলেই তা থেকে দূরে সরে যাই না; আমরা ঈশ্বরের দ্বারা সন্তুষ্ট হওয়ার জন্য মন্দ থেকে দূরে সরে যাই।

ঈশ্বর তাঁর গৌরবের জন্য কাজ করতে তাঁর সাথে যোগ দিতে আমাদের ডাকেন। তাঁর কাছে আত্মসমর্পণ করার পর, তিনি আমাদের এই সুন্দর বন্ধুত্ব অন্যদের সাথে ভাগ করে নেওয়ার জন্য অনুপ্রাণিত করেন, যাকে বলা হয় সুসমাচার প্রচার, এবং তাদের এটি কীভাবে অনুভব করতে হয় তা শিক্ষা দেওয়া, যাকে বলা হয় শিষ্যত্ব

তিনি আমাদের যেটা দেন তা এতোটাই ভালো যে, যখন আমরা এটি অনুভব করি, তখন আমরা নিজেদেরকে তা সম্পর্কে শেয়ার করা আটকে রাখতে পারি না। একবার আমরা যখন স্বাদ নিই এবং দেখতে পাই যে প্রভু ভালো, তখন আমরা স্বাভাবিকভাবেই মানুষকে বলতে চাই যাতে তারাও সেই স্বাধীনতা এবং আনন্দ অনুভব করতে পারে যা আমাদেরকে দেওয়া হয়েছে।

আবারও, এখানে সুখবর হলো এটি (সবচেয়ে ভালো খবর!): আমরা যতক্ষণ ঈশ্বরের প্রতি বিশ্বাস রাখি ও তাকে মেনে চলি তিনি আমাদেরকে ভালোবাসা ও ক্ষমা করার, অসীম জীবন দেওয়ার, অমঙ্গল থেকে স্বাধীনতা দেওয়ার, এবং গভীর বন্ধুত্ব রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। যদি আমরা আমাদের জীবনের শেষ পর্যন্ত বিশ্বস্ত থাকি, তাহলে ঈশ্বর আমাদেরকে একটি নতুন দেহ প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যা মন্দ আকাঙ্ক্ষা, মৃত্যু এবং ভাঙনের অভিশাপ থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত, তাঁর সাথে চিরকাল বাস করতে পারবে।

খারাপ খবর হলো, যে কেউ ঈশ্বরের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করবে সে পাবে অনন্ত শাস্তি এবং ঈশ্বর থেকে বিচ্ছিন্নতা যা আমরা আমাদের সবার মন্দ কাজের মাধ্যমে অর্জন করেছি।

ঈশ্বরের সুখবর এবং তাঁর অমান্য করলে কী হয় তার খারাপ খবর সুসমাচারকে আমাদের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সত্য করে তোলে।

আমরা ঈশ্বরকে গৌরাবান্বিত করার জন্য এবং তাকে চিরকাল উপভোগ করার জন্য আছি। আমরা প্রায়শই মনে করি আমাদের নিজেদের খুশি করার জীবন এবং ঈশ্বরকে খুশি করার জীবন থেকে একটি বেছে নিতে হবে। সত্য হলো, মন্দ আকাঙ্ক্ষাগুলোতে আত্মসমর্পণ আমাদেরকে খুব বেশি সময়ের জন্য খুশি করে না। মন্দে জড়িয়ে পড়লে হতাশা, নিজের মূল্যহীনতার একটি ভাঙা অনুভূতি এবং ধ্বংসাত্মক, মন্দ আচরণের প্রতি আসক্তি দেখা দেয়। মন্দ প্রবৃত্তি আমাদের শোসন করে, আমাদের আনন্দকে নষ্ট করে, এবং এঁকা করে ফেলে। এটি আমাদেরকে বানিয়ে ফেলে দাস

যখন আমরা নিজেদেরকে মন্দের দাসের পরিবর্তে ঈশ্বরের ভালবাসার জন্য ইচ্ছুক সেবক হিসাবে দেখাকে বেছে নিই, তখন আমাদের জীবনে ঈশ্বরের উপস্থিতি এবং তিনি সুসমাচারে আমাদের যে দুর্দান্ত উপহার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা আমাদের এমন আনন্দ এবং স্বাধীনতা দেয় যা কিছুই কেড়ে নিতে পারে না।

এটি সবকিছুকেই নিয়ে নেয়। তার সকল দয়া, জীবন, ও দয়াশীলতার জন্য আমাদের সকল অবাধ্যতাগুলি।

এটিকে স্মরণ করার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো এই পরিত্রাণের কবিতা পড়া:

যীশু তুমি ক্রুশে জীবন দিলে
আবার বেঁচে উঠলে, পাপীদের বাঁচাতে
ক্ষমা কর যত পাপ আমার
এস বন্ধু হও পরিত্রাতা আমার
নতুন কর জীবন আমার
সাহায্য কর বাঁচতে তোমায়

আরও বিস্তারিত জানুন

যোহন অধ্যায় ১৭ পড়ুন, যেটি যিশু তার মৃত্যুর আগে আমাদের জন্য সরাসরি যে প্রার্থনা করেছিল তার একটি রেকর্ড। যিশু যা বলেছেন তার সম্পর্কে আপনি যা আকর্ষণীয় মনে করেন তা লেখার চেষ্টা করুন, তারপরে আপনার প্রশ্নগুলি অন্য একজন খ্রিস্টানের সাথে পড়ুন এবং আলোচনা করুন। আপনার জন্য যিশুর ব্যক্তিগত পর্যায়ে প্রার্থনা করার বিষয়টিকে আপনি কী মনে করেন?